আজ- বুধবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিশু নিরাপত্তায় কিছু পরামর্শ

ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার সবার জন্য অসীম তথ্যভাণ্ডার এবং বিনোদনের সীমাহীন দ্বার উন্মুক্ত করেছে। শিশুরাও এর ব্যতিক্রম নয়। শিশুর মানসিক বিকাশের জন্য ইন্টারনেটের যেমন গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে, একইভাবে এর কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। তবে সামান্য সচেতন হলে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকগুলো থেকে শিশুদের রক্ষা করা সম্ভব।

স্বাস্থ্যকরভাবে মোবাইল ও কম্পিউটার যন্ত্র ব্যবহার করার জন্য খাবার এবং ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ করা উচিত বলে বলছেন যুক্তরাজ্যের শীর্ষ চারজন প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা।

-প্রতি ঘণ্টা অন্তর শিশুদের অবশ্যই মোবাইল বা কম্পিউটারের স্ক্রিন থেকে চোখ সরানো উচিত, তারা বলছেন।

-শিশুদের নিরাপদ রাখতে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর আরো ভূমিকা রাখা উচিত বলে তারা মনে করেন।

-নিজের ক্ষতি এবং আত্মহত্যার মতো প্রবণতা রুখতে ইন্সটাগ্রামের সঙ্গে ব্রিটেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক বৈঠক করতে যাচ্ছেন, এমন খবর প্রকাশের সময় এই তথ্য জানা গেল।

-ইন্সটাগ্রামের কিছু উপাদানের কারণে কিশোরী মলি রাসেলের আত্মহত্যার জের ধরে এই বৈঠকটি হতে যাচ্ছে। কিশোরীর বাবার অভিযোগ, ফেসবুকের মালিকানাধীন ইন্সটাগ্রাম তার সন্তানকে হত্যায় সহায়তা করেছে।

-যন্ত্র ব্যবহারের সময় কিছু সতর্কতা এবং পদ্ধতি অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন ব্রিটেনর প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তারা, যেগুলো অনুসরণ করে শিশুদের নিরাপদ রাখা যেতে পারে।

-খাবারের সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা। কারণ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে গল্পগুজব করাটা উঠতি বয়সের সন্তানদের জন্য খুব ভালো হয়।

-ঘুমানোর আগে থেকেই বা বিছানায় মোবাইল ফোন ব্যবহার করার অভ্যাস পরিত্যাগ করা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অনলাইনের নিরাপদ থাকার বিষয়ে আলাপ আলোচনা করা, যাতে তারা ইন্টারনেটের হয়রানি বা উস্কানি সম্পর্কে সতর্ক হয়। এরকম পরিস্থিতি দেখা গেলে তাদের কি করা উচিত, সেটাও ঠিক করে রাখা।

elive

Read Previous

ঈদের খাবারে রাশ টানবেন কবে!

Read Next

ত্বকের বয়সের ছাপ দুর করতে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *